UnishKuri
Web-entertainment-2.jpg
পিরিয়ড্স ইররেগুলার?

আমার বয়স ১৮ বছর। দু’মাস আগে আমার বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে আমার শারীরিক সম্পর্ক হয়। তারপর ডাক্তারের পরামর্শে একটা ওষুধ খাই যাতে দু’দিন সামান্য পিরিয়ড হয়। তবুও ইনসিকিয়োর ফিল করায় এক হোমিওপ্যাথি ডাক্তারের ওষুধ খাই। এই মাসে আমার পিরিয়ড হয়নি। হোমিওপ্যাথি ডাক্তার বলেছে সামনের মাসে ঠিকসময়ে পিরিয়ড হবে। এদিকে আমার পেটে চাপ দিলে ব্যথা লাগে। কী করব আমি এখন?
নাম ও ঠিকানা প্রকাশে অনিচ্ছুক

তুমি কী ওষুধ খেয়েছ, সেটা চিঠিতে জানাওনি। সুতরাং সে ব্যাপারে কোনও পরামর্শ দিতে পারছি না। ইমার্জেন্সি কনট্রাসেপটিভ পিল খেলে অনেকসময় এরকম একটু স্পটিং হতে পারে। যদি ঠিকমতো ওষুধ খেতে থাকো, তা হলে তোমার প্রেগন্যান্সি আসার কথা নয়। তবে পেটে ব্যাথা কিন্তু অন্য কারণেও হতে পারে। অনেকসময় পেলভিক ইনফেকশনের জন্যও পেটে ব্যথা হয়। তুমি অবিলম্বে কোনও ভাল গাইনিকলজিস্টের সঙ্গে পরামর্শ করে সঠিক চিকিত্‌সা শুরু করো। বাড়িতে বড়দের সঙ্গে এই বিষয়ে খোলাখুলি আলোচনা করো।
 

আমি আমার বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করতে চাই। এতে আমার বয়ফ্রেন্ড কোনও কন্ডোম ব্যবহার করতে চায় না। কিন্তু আমি ভয় পাই এবং কন্ডোম ব্যবহার করতে চাই। সো প্লিজ়, আমায় জানাবেন কোন কোম্পানির ফিমেল কনডোম ভাল? কোনও গর্ভনিরোধক ওষুধ খেলে কি যৌনরোগের হাত থেকে রক্ষা পাব?
প্রিয়ংকা কুমার, কলকাতা

বাজারে অনেক ফিমেল কন্ডোম পাওয়া যায়, খোঁজ নিতে দেখতে পার। তবে ছেলেদের কন্ডোম অনেক সহজলভ্য, সেটা ব্যবহার করাও অনেক সোজা। কন্ডোম ছাড়া শারীরিক সম্পর্কে যাওয়াটা একেবারেই উচিত নয়, কারণ এইড্সের মতো মারাত্মক যৌনরোগের শিকার হয়ে যেতে পার। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কন্ডোম যৌন রোগ সংক্রমণ আটকায়। তবে তোমার পার্টনারকে এই ব্যাপারে বিস্তারিত বুঝিয়ে শারীরিক সম্পর্কে যাওয়া উচিত। এখন বাজারে অনেক পাতলা কন্ডোমও পাওয়া যায়, যা সম্পর্কে বাধা সৃষ্টি করে না। তবে চিঠিতে তোমার বয়স কিছু উল্লেখ করোনি। ১৯ ২০ বয়সের আশাপাশেই তোমার বয়স ধরে নিচ্ছি। এত কম বয়সে একটা শারীরিক সম্পর্কে যাওয়ার আগে পাঁচবার ভেবে নেবে। শারীরিক সম্পর্কে যাওয়ার আগে, তোমরা মানসিকভাবে এই সম্পর্কের জন্য কতটা প্রস্তুত, সেটা একবার ভাল করে যাচাই করে নেওয়া দরকার।

পিরিয়ড্সের সময় কী করব, কী করব না
এক্সারসাইজ় একেবারেই করব না এইসময়। হালকা যোগাসন করা যেতে পারে। সেটা অবশ্যই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে করব।
পেটে ব্যথা হলে হট ব্যাগ পেটে রাখলে একটু আরাম পাবে।
এই ক’দিন বেশি নুন, মিষ্টি ও জাঙ্ক ফুড এড়িয়ে চলবে। এমনকী, চা, কফি, চকোলেট, কোল্ড ড্রিংক বা ঠান্ডা জলও অ্যাভয়েড করতে পারলে ভাল। বরং সেখানে হার্বাল টি খেতে পার।
মাছ, ডিম ও দুধ খেতে হবে রোজ।
শরীরের দুর্বলতা কমানোর জন্য রোজ খাওয়ার পরে ভিটামিন বি ও ক্যালসিয়াম ক্যাপসুলও খেতে পার।
দিনে একটা নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে প্যাড চেঞ্জ করবে। একই প্যাড দীর্ঘসময় ব্যবহার করলে বিভিন্ন চর্মরোগ হতে পারে। একটা প্যাড সাত থেকে আট ঘণ্টায় একবার চেঞ্জ করলে ভাল।
এই ক’দিন মাথায় জল দিয়ে ভাল করে স্নান করতে হবে। এতে শরীর ঠান্ডা ও সুস্থ থাকবে।